Uncategorized

মধু খাওয়ার গুন ও উপকারিতা এবং ত্বকের যত্নে মধু

মধুর উপকারিতা উপাদানসমূহ এবং অপকারিতা

মধু

ইংরেজি শব্দ “Honey” এর বাংলা অর্থ মধু,যা আমরা সবাই জানি। মধু অত্যান্ত গুনসমৃদ্ধ প্রাকৃতিক উপাদান,যা আমাদের শরীর স্বাস্থ্য ,ত্বক ও চুলের যত্নেও ভীষন কার্যকরি।

খাটিঁ মধু বিশেষ গুনসম্পন্ন হয়ে থাকে। পবিত্র কুরআন-হাদীসেও মধুর গুনাগুন সম্পর্কে বলা রয়েছে। হযরত মুহাম্মদ (স) এর মতে,” সকল পানীয় উপাদানের মধ্যে মধু সর্বোৎকৃষ্ট।

মধু কী এবং মধুর গুনসমৃদ্ধ বিভিন্ন উপাদান ,উপকারিতা ,অপকারিতা সম্পর্কে জেনে নিই

মধু কী

মধু হচ্ছে মিষ্টি জাতীয় পদার্থ। মৌমাছিরা ফুল থেকে পুষ্পরস সংগ্রহ করে মৌচাকে জমা রাখে।

পরবর্তীতে মৌয়ালরা মৌচাক থেকে বিভিন্ন প্রক্রিয়ায় মধু সংগ্রহ করে থাকে।যা খাটিঁ মধু হিসেবে পরিচিত এবং এই মধু আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ভীষন উপকারি।

মধুর উপাদানসমূহ মধু খাওয়ার গুন ও উপকারিতা এবং ত্বকের যত্নে মধু

মধুর উপাদানসমূহ

মধুর শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে ।

এছাড়াও মধু আমাদের শরীরে মুল্যবান মহাষৌধ হিসেবে কার্যকর ভুমিকা পালন করে।

মধুতে রয়েছে প্রায় ৪৫টির মত খাদ্য উপাদান যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ভীষণ উপকারি।

মধুতে রয়েছে ,ফ্রুক্টোজ,সুক্রোজ,অ্যামাইনো এসিড,গ্লুকোজ,খনিজ লবণসহ বিভিন্ন প্রকার ভিটামিন যেমন, ভিটামিন বি-১,বি২,বি-৩, ভিটামিন সি, বি-৫, ভিটামিন এ কে, ই যা আমাদের শরীরে পুষ্টি জোগানোর পাশাপাশি রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়িয়ে তুলতে সক্ষম।

মধু চুল ও ত্বকের যত্নেও ভীষণ উপকারি।

বৈশিষ্ট্য মধু খাওয়ার গুন ও উপকারিতা এবং ত্বকের যত্নে মধু

মধুর বৈশিষ্ট্য

মধু তরল জাতীয় এক প্রকার মিষ্টি পদার্থ।যা সংগ্রহের পর থেকে অনেক দিন পর্যন্ত সংরক্ষন করা যায়।

মধুতে ১৪-১৮% পর্যন্ত আদ্রতা থাকে ।মধু পাস্তুরাইজড করলে এর প্রাকৃতিক ঔষধি গুণাবলী হ্রাস পায় এবং মধুর পুষ্টিগুন নষ্ট হয়ে যায়।

তাই খাটিঁ মধু স্বাস্থ্যের জন্য অতুলনীয়।

মধুর উপকারিতা

1. হৃদরোগে- মধু হৃদ্‌রোগের এক মহাষৌধ হিসেবে ভীষণ উপকারী উপাদান। এটা হৃৎপেশিকে শক্তশালী করে এবং এর কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

2. রক্তপরিষ্কারক- নিয়মিত মধু পান করলে রক্ত পরিষ্কার হয়। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে লেবুর সাথে মধু মিশিয়ে পান করলে এটি আমাদের শরীরের রক্ত পরিষ্কার করতা সাহায্য করবে এবং রক্তনালী পরিষ্কার করতে সহায়ক ভুমিকা পালন করবে।

3. হাঁপানি রোগ প্রতিরোধেও মধু কার্যকরী ভুমিকা পালন করতে সক্ষম।

4. শক্তি প্রদায়ী -মধু শক্তি প্রদায়ী খাদ্য। মধু শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি করে এবং শক্তির সঞ্চার করে, শরীরকে সুস্থ রাখে।

যাবতীয় রোগ ভালো করে মধু খাওয়ার গুন ও উপকারিতা এবং ত্বকের যত্নে মধু

5. ফুসফুসের যাবতীয় রোগ ও শ্বাসকষ্ট নিরাময়েও মধু ভীষণ উপকারী।এছাড়াও মধু শ্বাসকষ্ট নির্মূলেও গুরুতবপূর্ণ ভুমিকা পালন করে।

6. প্রশান্তিদায়ক পানীয় হিসেবেও মধুর ব্যাপক জনপ্রিয়। হালকা গরম দুধের সঙ্গে মধু মিশিয়ে পান করলে এটি শরীরে প্রশান্তি আনে।

7. অনিদ্রা- মধু ঘুমের জন্য খুব ভালো ওষুধ হিসেবে কাজ করে। রাতে শোয়ার আগে এক গ্লাস পানির সঙ্গে দুই চা–চামচ মধু মিশিয়ে খেলে ভালো ঘুম হয়।

8. হজমে সহায়তা- মধু হজমের ক্ষেত্রেও বেশ উপকারি। মধুতে রয়েছে ডেক্সট্রিন , যা সরাসরি রক্কতে প্রবেশ করে এবং দ্রুত ক্রিয়া সম্পাদন করে।

9. কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতে সহায়ক মধুতে আছে ভিটামিন বি কমপ্লেক্স যা ডায়রিয়া ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে।

রক্তশূন্যতায়- মধুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে লৌহ,কপার এবং ম্যাঙ্গানিজ যা রক্তের হিমোগ্লোবিন গঠনে সহায়তা করে। এবং রক্তশূন্যতা দূর করতে সহায়তা করে।

মধু হজমের সমস্যা দূর করে মধু খাওয়ার গুন ও উপকারিতা এবং ত্বকের যত্নে মধু

10. পাকস্থলীর সুস্থতায় মধু পাকস্থলীর কাজকে জোরালো করে এবং হজমের সমস্যা দূর করে, এবং হজম শক্তি বাড়ায়।

11. গলার স্বর -মধু পান করলে কন্ঠ সুন্দর ও মধুর হয়।

12. ওজন কমায়-মধুতে কোনো চর্বি নেই । এটি পেটের অতিরিক্ত চর্বির পরিমাণ কমিয়ে ওজন নিয়ন্ত্রণ করতেও সহায়ক ভুমিকা পালন করে থাকে।

13. হাড় ও দাঁত গঠনে-মধুতে রয়েছে ক্যালসিয়াম যা গুরুতবপূর্ণ উপাদান হিসেবে বিবেচিত। ক্যালসিয়াম হাড় ও দাতঁ মজবুত করে এবং চুলের গোঁড়া শক্ত করতেও ভীষণ কার্যকরী।

14. রোগ প্রতিরোধশক্তি বাড়ায় -মধু শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায় এবং শরীরে বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া থেকে সু্রক্ষিত রাখে।

15. আমাশয় ও পেটের পীড়া নিরাময়ে মধু পান করলে তা থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যায়।

16. রক্ত উৎপাদনে সহায়তা-মধুতে রয়েছে অনেক পরিমানে আয়রণ যা রক্ত উৎপাদনে সহায়তা করে।

বজায় রাখতে মধু 1 মধু খাওয়ার গুন ও উপকারিতা এবং ত্বকের যত্নে মধু

17. তারুণ্য বজায় রাখতে-মধুতে রয়েছে অ্যান্টি–অক্সিডেন্ট, যা ত্বকের রং ও ত্বক সুন্দর করে। ত্বকের ভাঁজ পড়া ও বুড়িয়ে যাওয়া রোধ করে তারূণ্যতা বজায় রাখতে সাহায্য করে।

18. রক্তশূন্যতা ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূরীকরণ-মধু ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স সমৃদ্ধ, যা রক্তশূন্যতা ও কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করতেও অনেক উপকারী।

19. দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধিতে-মধু দৃষ্টিশক্তি বৃদ্ধিতেও ভীষণ উপকারী ।

20. মুখগহ্বরের স্বাস্থ্য রক্ষায়- দাতেরঁ মাড়ির সুরক্ষাতেও খাটিঁ মধুর ভীষণ কার্যকরী।

21. রূপচর্চায় -মেয়েদের রূপচর্চার ক্ষেত্রে মাস্ক হিসেবে মধু ব্যবহার করে থাকে। মধু ব্যবহারে ত্বক হয় উজ্জ্বল কোমল ও মসৃন।

এছাড়াও মধু অনেক উপকার রয়েছে, মধু সেবনে কাশি উপশম হয়,ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে সহায়তা করে, দীর্ঘদিনের সর্দি জ্বর,নির্মূল করতে সহায়তা করে,এবং মস্তিষ্কের কলা সদৃঢ় করে স্মৃতিশক্তি বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে।

যত্নে মধু মধু খাওয়ার গুন ও উপকারিতা এবং ত্বকের যত্নে মধু

ত্বকের যত্নে মধু

মধু ব্যবহারে ত্বক হয় মসৃন,কোমল ও উজ্জ্বল ও ময়েশ্চারাইজ।

চুলের যত্নে মধুর ব্যবহার

মধু চুলের যত্নেও বিশেষ কার্যকরী। মধু ব্যবহারে চুল হয় কন্ডিশনিং এর মত এবং চুলকে স্লিকি ও শাইনী ও ঝলমলে করে।

এটি চুলের গোড়ায় পুষ্টি জোগিয়ে চুলকে মজবুত করতে সহায়তা করে।

অপকারিতা

মধু যেমন আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ভীষণ উপকারি তেমন কিছু কিছু ক্ষেত্রে এই মধু সেবনের ফলে আমাদের শরীরে অসস্তির কারণ হয়ে যায়।

মধু ডায়াবেটিস রোগের জন্য বিপদজ্জনক।

খাবার অপকারিতা 1 মধু খাওয়ার গুন ও উপকারিতা এবং ত্বকের যত্নে মধু

যেহেতু মধু অনেক পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ এবং মধুর শরীর স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারি, তাই পরিমাণমত এবং নিয়মানুযায়ী মধু পান করি এবং সুস্থ থাকি।

কিছু কথা

আপনাদের সুবিধার জন্য কিছু ভালো মধুর নাম লিখে দিলামঃ খলিশা ফুলের মধু , কালোজিরা ফুলের মধু , লিচু ফুলের মধু , সরিষা ফুল এর মধু । চাইলে আমাদের ওয়েবসাইট থেকে আসল মধু সংগ্রহ করতে পারেন আমরা দিচ্ছি ১০০% খাঁটি মধুর নিশ্চয়তা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *